অযৌক্তিক

SOURAV SARKAR

 এতো আবেগ আসছে কেন বলুন তো – কোথা থেকেই বা আসছে। প্যানপ্যানে emotion আর রগরগে মাসালা যোগ হলেই ব্যাস কেল্লা ফতে – সিনেমা,সিরিয়াল,নাটক,যাত্রা,পলিটিক্স,সমাজ – সবেতেই A++ । বাঙালি আর কিছু পারুক না পারুক জমিয়ে দুঃখ করতে পারে। “জন্ম থেকেই sentu খেয়ে শহিদ শহিদ ভঙ্গি // তাই গুলির আগেই surrender আর প্রেমের আগে লেঙ্গি”। কান্না টা সেই ছোটবেলার পর থেকেই আর থামেনি – ‘আমার কিছু নেই’; ‘আমায় কেউ দ্যাখে না’; ‘আমায় টিম এ খেলতে নেয় না’; ‘সুমন কথা বলতে দেয় না’; ‘রেল reservation দেয় না’; ‘সরকার DA দেয় না’ – “আমরা বঞ্ছিত, আমরা লাঞ্ছিত”। তুমি সকালে উঠে ঘারে powder মেখে রাস্তায় বেরোতেই দেখবে তোমার চটি ছিঁড়ল, গাছের তলা দিয়ে হাতলেই পক্ষি তোমার মাথায় tip করে বিষ্ঠা ত্যাগ করল, Freedom 251 book করতে বসে দেখবে session টাইম আউট, বাস এ seat এর জন্যে যার সামনে দাঁড়ালে তার destination হাওড়া, তুমি রোদ রোদ দেখে ছাতাটা বার করে রেখে ব্যাগ হাল্কা করলে আর সেদিনই ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি – এগুলো একবার গভীর একটা নিশ্বাস নিয়ে ‘সবই ভাগ্য’ বলে মেনে নিলেই ঝামেলা চুকে যায়। কিংবা একান্ত একটা revolutionary সত্ত্বা থাকলে এগুলো যাতে না হয় তার জন্য আগাম precaution এর প্রচেষ্টা করেও দেখা যেতে পারে। কিন্তু বাঙালি আমরা উক্ত দুটির কোনটাই না করে একটা রেলা নিয়ে দুঃখ দুঃখ ভাব করে বসে থাকব দুনিয়া শুদ্ধ লোক এসে কখন একটু ‘আহা’ ‘উহু’ করে যাবে সেই আশায়। এই যে একটু একটু সহানুভূতির এতো Demand, এর থেকেই বোঝা যায় বাঙালি জাত কোন দিকে অগ্রসারিত হয়েছ। সকাল থেকে উঠে Rabindranath ভাবতে বসতেন মহাবিশ্ব নিয়ে; আর তোমাদের যাবতীয় চিন্তাভাবনা ঘুরপাক করছে পায়খানা নিয়ে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে এখন সরকারের কল্যানে ‘নির্জন’ আশ্রয় অপেক্ষা করছে তোমার জন্য প্যান বিছিয়ে। পকেট করে শুধু একটা লাইফবয় সাবান carry করতে হবে। অভিজ্ঞতার মূল্য কতখানি সেটা সেদিন শ্যাম বাবু বুঝেছিলেন। অধিকবার বারন আর সমস্ত টিটকিরি অগ্রাহ করে বির যোদ্ধার ন্যায় শেষ পাতে চুমুক দিয়ে ওই লাল রঙের পাঁঠার ‘ঝোল’ নামক তরল টি পান করেছিলেন। Newton এর 3rd Law ফেল করেনি – গড়িয়াহাট ছাড়িয়ে বাস টা ফাঁড়ির দিকে যেতেই ব্যাপারতা চাগাড় দিয়ে উঠল; দ্রুত পদচালনা করে বাস থেকে নেমে একদম নিরাপদ আশ্রয় এ। দারয়ান ওনার পরিচিত, সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার বাধা রুটিন; ২০ টাকার নোট ও সানন্দে খুচরো করে সতেরো ফেরত দিয়ে দেয়। “এ শৌচালয় আপনার একে সাফ রাখবেন আপনি” লেখাটাকে কেউ যত্ন করে প্রতিদিন মুছে দিয়ে যায়। সেদিনি ব্যাপারটা ঘটে গেলো – ঢুকতে গিয়ে তিনি দেখে ফেললেন পাশের টায় লাইন দিয়ে দাড়িয়ে ওনার বস। মুখচোখের বিকৃতি তে স্পষ্ট যে তিনি কথা বলার অবস্তায় নেই। শ্যাম বাবু কে দেখে লজ্জায় মাথা কাটা যাওয়ার থেকেও বেশি করে চোখে মুখে ফুটে উঠছে আকুতি। এমন সুবর্ণ সুযোগ শ্যাম বাবু হাতছাড়া করেন নি – নিজের লাইন টা ছেড়ে দিয়েছিলেন তো বটেই সঙ্গে করে পকেট থেকে বার করে লাইফ বয় সাবানটি ও বসের চরণে অর্পিত করেছিলেন। ফলস্বরূপ পরের দিনই তার double promotion।

->বাঁচাল

 

 

Advertisements

5 thoughts on “অযৌক্তিক

  1. আসলে ‘মহাবিশ্ব’ আর ‘পায়খানা’ একই কনসেপ্টের দুটো সত্বা মাত্র! :p

    Liked by 1 person

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s