Your worth

SUMANA SAHA

download

They say never give up,
Never give in,
Keep fighting that fight,
So the devil doesn’t win.
Through the hurt and the pain,
The sorrow and the shame,
The one thing you need to remember,
Is that tomorrow is never the same.
 
Hold on to your hopes and dreams,
For your fears are less than they seem,
So to all of those who feel like they are losing the fight,
And to those who feel like there is no hope in sight,
Take a minute to look at the sky
And remember that there’s something
Out there bigger than you and I.
 
Just like today,
The sun will shine again,
Through the clouds and the rain,
The sun still remains,
And all the darkness will fade away.
 
So hold your head high,
And feel the warmth,
It may remind you,
What you are truly worth.
Advertisements

Found.

SUMANA SAHA

Image result for girl looking at the mirror

I know I’m smiling but don’t take it as for what it seems,
‘Cause the only time I’m happy is when I’m in my dreams,
‘Cause my life is that of the lonely kid cast out in the shadows,
Full of tears, frowns and many lost battles.
 
Down in a black hole trying to escape depression,
But you can’t run away from what will always be your reflection,
And as you run away, reality is getting nearer;
And instead of changing yourself, you try to change the mirror!
But what do you do when the mirror falls down?
Breaking apart as it hits the ground
 
And now you have nothing to hide behind..
And now you need the courage you have yet to find.
Because fear and sorrow are just emotions that play tricks on your mind,
Trying to prevent you from making your life and dreams intertwine.
But instead of giving in ,you try to break out,
Rebuilding the happiness that fear and sorrow take out..
 
Because the obstacles you have aren’t important; it’s about how you handle it:
Because fear can only be as bad as you imagine it.
And sorrow comes with tears just as gray clouds come with rain
And then it will pass quicker than it came.
So just be proud you didn’t cut yourself with the mirror’s glass
And just know that the worst has already passed..
 
But if you look in a mirror again, look with open eyes,
So if you don’t like the out, you can take a look inside.

Let’s just be ourselves anyway…

SUMANA SAHA

Image result for happy

When life is full of sufferings and hardships, you might be depressed.
Let’s just live life anyway.

When you are happy, people may be jealous.
Let’s just be happy anyway.

When you are kind, you might be accused of selfish motives.
Let’s just be kind anyway.

When you are honest, some people may cheat you.
Let’s just be honest anyway.

When you trust others, you might be betrayed.
Let’s just trust others anyway.

When you succeed, you win false friends and true enemies.
Let’s just succeed anyway.

When people are unreasonable and selfish, you might be hurt.
Let’s just forgive them anyway.

When you’ve built for years, someone might destroy it overnight.
Let’s just build on anyway.

When people make mistakes, you might have to suffer.
Let’s give them a second chance anyway.

When you do something good today, it might be forgotten tomorrow.
Let’s just do good anyway.

When people realize their mistakes and apologize for it,
Maybe it’s time to forgive them anyway.

When you give your best, it might not seem enough.
Let’s give our best anyway.

You see, the final analysis is between you and yourself.
It was never between you and them anyway.

MEDIOCRITY

 

U :- Interviewer

S :- Shamik

 

U – Who is your favorite cricketer?

S – Well..Its Sourav Ganguly

U – You have seen Sachin Tendulkar playing, Rahul Dravid in action then why Ganguly!! Because he is a bengali??

S – Not at all. Ganguly would have been my favorite if he would have been from Punjab or Diu or Kashmir. It’s the game he plays not the language he speaks or the state he belongs to.

U – But that’s only answering my question partially. Tell me why Ganguly. You don’t need to be a cricket genius to know or judge that Tendulkar or Dravid was a better player than him. Mark my words, I asked you who is your favorite cricketer and not your favorite personality or so. If you are choosing Ganguly for the dynamicity of his personality then better amend your answer.

S – Well it seems that you are more interested in establishing your choice over mine rather than knowing my answer. With all my knowledge and wisdom I still stick to my initial response; yes Sourav Ganguly is my favorite cricketer among all I have seen playing the game till date.

U – Very good then. Site some of the reasons why he is your favorite.

S – You love to eat chicken; isn’t that enough!! Do you search for reasons why you love to eat? Or simply eat when you are served your favourite dish?

U – I will surely eat the chicken merrily when served. But the case is that you are not choosing the chicken my dear. In a course served with chicken, paneer, vegetables etc you are choosing something like a papaya preparation. Well fine its your choice, you are free to do so. But you yourself should know why you are doing so, isn’t it. Is it just for the sake of doing it or are there some valid reasons…?

S – I may look a confused person and apparently a bit fickle minded…But but don’t you dare challenge my choices…Yes it is Sourav Ganguly, and he is my favorite because of the fact that he was not the greatest. It’s not easy you know, to share your dressing room with your friends of the same age who you know are far superior to you in the field that you all are in; be it cricket or in any other aspect of life. He dwelled with the best being much mediocre in abilities. Yet he managed to score over 20 k runs in recognized form of cricket and today he is placed in the top elite list of cricketers of all time. So how did he manage to do that!! He was not a born genius, neither he had great perseverance like that of Rahul Dravid to emerge into a genius in his lifetime; but what he had is the great sense of knowledge about this. He faced his weaknesses and never rushed to rectify them overnight. Rather he did what he can do best. The whole world knew that Ganguly’s weak point were the balls bowled to him at the leg stump, so what he did was make room for those balls on the leg stump by moving a bit away from the wicket and then played them in his strong zone – the off stump and today when we remember him we still call him ‘the God of offside’. That’s how admiration needs to be earned.

U – So how do you apply the philosophy in your life?

S – I try to. It has always been my inspiration. That mediocrity is not the limit for someone mediocre in abilities is what I learn from him. Another important thing he teaches is to be practical with things in life. With proper knowledge of his abilities he had always known that he can’t be Sachin Tendulkar or Dravid in spite of dwelling and competing at par with them. So he never ever tried to do so and at the same time has kept his self esteem level damn high. He played the game with the mentality that every accomplishment is coming as an over achievement to him and in due course he has nothing to lose. This is the way I try to sculpt my way through life.

 

Clean of my emptiness…

SUMANA SAHA

Image result for girl sitting and thinking

Off to the emptiness
where I am widely invited.
I do hope loneliness
will consume my soul.
 
Away the hurt will go.
No more aches because
the dulling numbness,
will take away my feel.
 
Stretching long and far
is my path,
leading to a place
hoarding the lowest of lows.
 
One more companion
to guide my way.
I do hope
He doesn’t shun my choice.
 
Crawling through the years,
peaking upwards
through the vents,
I see the world as it is.
 
To people pay no attention to
the reflection I see.
Only showing dirt,
hopelessness, and debris.
 
Alas they only see
what is shown to them.
No second glance
of reconsideration.
 
Warmth and comfort,
turn to foreign concepts.
Taking their place,
hurt and sorrow.
 
What will become
of my murky reflection,
Tainted? Stained?
Forgotten.
 
Would it be easier,
to just accept?
Skip the pain
right to the killing.
 
Tear off the leftover shreds
of my feelings.
Plunge into darkness,
hopefully to resurface,
 
Clean of my emptiness.

সুখের বাসা

পর্ব- এক

এক ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্ম হয়েছিল একটি মেয়ের নাম, দীপা..
ছোটোবেলা থেকে মামাবাড়ি তে বড়ো হয়ে উঠেছে দীপা, পড়াশোনাও করেছে কিছুটা. কিন্তু মামির ভয়ে খুব বেশি স্বাধীনতা ছিলোনা তার… একটু একটু করে বড়ো হতে লাগলো সে বাড়ির লোক তার বিয়ের ব্যবস্থা করলে তার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো, সে যে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ রমেশ এর কাছে.. “গল্পের সূত্রে বলে রাখি রমেশ তার ছোটোবেলার খেলার সাথী এবং জাতিতে তাদের থেকে নীচুতে..” তা জেনেও দীপা রমেশকে ভালোবাসে.. দীপা তার বাড়িতে জানায় তার মনের কথা কিন্তু খুব স্বাভাবিকভাবেই কেউ মানে না তাদের সম্পর্ক..সে ঠিক করে রমেশ এর সাথে সে ঘর বাঁধবে, পালিয়ে যায় দীপা..

পর্ব- দুই

স্বপ্ন ছিলো সুখের বাসা বাঁধবে ওরা দীপা আর রমেশ, দেখতে দেখতে বেশ কয়েক বছর কেটে গেছে.. রমেশ একটা ভালো চাকরী করছে সুখেই কাটছে তাদের জীবন..এর মধ্যে তাদের জীবনে এক নতুন সদস্য এসেছে, তাদের এক মাত্র সন্তান অনিরুদ্ধ..অনি ছোটো বেলা থেকেই পড়াশোনায় খুব ভালো ক্লাসে প্রথম ছাড়া দ্বিতীয় হয়নি কখনো.. দীপার খুব গর্ব তার ছেলেকে নিয়ে.. ছেলেও মাকে চোখে হারায়..দীপার সুখের সংসার হয় একটু বড়ো কারণ রমেশ একটু একটু করে টাকা জমিয়ে ছোট্ট এক সুখের নীড় বানিয়েছে..দেখতে দেখতে অনি বড়ো হয়ে গেছে এখন সে একটা নামী কোম্পানির সি. ই. ও. মোটা টাকা মাইনে তার..দীপা এখন চায় ছেলের বিয়ে দিয়ে তাকে সুখী দেখতে..খুব ধুমধাম করে বিয়ে দেয় তারা তাদের এক মাত্র ছেলের..দীপার সুখের মাত্রাটা হয়তো বেড়েছিলো আরো একটু…

পর্ব- তিন

অনির বিয়ের 5 বছর কেটে গেছে এর মধ্যে দীপার জীবনে চরম এক দুর্ঘটনা ঘটে গেছে তার ভালোবাসার মানুষটা আজ আর তার পাশে নেই..তবু নিজেকে শক্ত রেখেছে সে ছেলে আর বাবাই এর মুখ চেয়ে..” ও ভুলে গেছিলাম বলতে, অনির ছেলে হয়েছে তার এখন 4বছর বয়স, তার নাম বাবাই..” খুব দুরন্ত সে ঠাকুমা একা হাতে পারেনা তাকে সামলাতে..বাবাইও খুব ঠাকুমা নেওটা অনেকটা অনির মতোই.. দেখতে দেখতে দীপা বৃদ্ধা হচ্ছে সে আগের মতো শক্ত নেই..এখন রোজই রমার সাথে অনির অশান্তি হয়..সে চায় দীপাকে বৃদ্ধাশ্রমে রাখতে সে আর পারছে না একা হাতে সব সামলাতে..কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে অনি তা করেনি..তবে অনির ভালোবাসার মাত্রাটা বেড়েছে অনেকটা..যে হাত একদিন দীপার পা ছুঁত আজ তা গায়ে উঠেছে..দিনের পর দিন অত্যাচার সহ্য করেছে সে..এখন দীপার খুব অসুখ বিছানা নিয়েছে সে তাও অনি ফিরে তাকায়নি মার দিকে যে মা একদিন নিজে না খেয়ে ছেলেকে খাইয়েছে সেই মাকে আজ ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়েছে সে….দীপার এতো সুখ দেখতে পারেনি তার প্রকৃত ভালোবাসার মানুষটি..আজ দীপা রমেশ এর কাছে..এক অন্য জগতে সুখের বাসা বেধেছে নতুন করে দুটিতে মিলে…….

অনুশ্রী কর

শেষ ঠিকানা

সকালবেলায় ঘুম থেকে উঠে চমকে উঠলো পরিতোষ..70টা Missed call!!! খুব চিন্তায় পরে গেলো সে..বাড়ীতে আবার কোনো বিপদ হলো না তো??? রাতে অফিস থেকে ফিরেও কাজের খুব চাপ ছিলো তার ফোন টা সাইলেন্ট রেখে কাজ করতে করতে কখন যে ঘুমিয়ে পরেছে তার খেয়াল নেই…ফোন করলো বাড়ীতে.. ইদানীং তার আর বাড়ী যাওয়া হয়ে ওঠেনা কিছুটা কাজের চাপ আর কিছুটা অনিচ্ছা.. এমনকি ফোনেও খুব যে কথা হয় তাও নয়…কিন্তু কই কেউ তো তোলেনা তার ফোন..তার চিন্তাটা আরো একটু বাড়ে… পর পর 9-10 বার ফোন করলো সে তবু কোনো উত্তর পেলনা…সময় তখন সকাল 6টা..অফিসে অনেক কাজ তৈরি হতে হবে অফিসের জন্য..বিছানা ছেড়ে উঠে পড়লো সে..রোজগার মতো সব কাজ করছে সে তবু মনটা আজ ভালো নেই তার একটানা 2মাস বাড়ীর সাথে তার কোনো যোগাযোগ নেই..তার বাবা মা তার পাঠানো টাকাটাও আজকাল ফেরত পাঠিয়ে দেয় তাকে… … … …
কাজের মধ্যে ডুবে যায় সে সারাদিন তার আর মনেই থাকে না বাড়ীতে ফোন করার কথা..রাতে অফিস থেকে বেরোবার সময় হঠাৎ মনে পড়ে তার সকালের কথা আবার ফোন করে বার বার ফোন করে সে, কই কোনো জবাব দিচ্ছেনা তো কেউ…আজও তার অনেক কাজ বাড়ী ফিরেই বসতে হবে তাকে..তবে আজ আর ফোন টা সাইলেন্ট করেনি সে কিরকম অজানা অস্থিরতা ঘিরে ধরেছে তার মন টাকে…আজও কালকের মতো কাজ করতে করতে সে ঘুমিয়ে পরে..সকালে উঠে সে চমকে ওঠে আজও তার ফোনে 70টা Missed call..কিন্তু তার পরিস্কার মনে আছে কাল রাতে সে তার ফোন সাইলেন্ট করেনি তাও এত বার ফোন বাজলো সে শুনতে পেলো না ফোনটাই বা সাইলেন্ট হলো কি করে.. সে ভাবলো রাতে কোনো ভাবে হাত লেগে কি তবে সাইলেন্ট হয়ে গেছে?? তাই হবে হয়তো সে আজও ফোনের পর ফোন করে গেল উত্তরটা সেই এক রয়ে গেলো…তবুও অফিস তো যেতেই হবে কোনো উপায় নেই তার, কিন্তু আজ সারাদিন মন বসলো না তার কাজে… সারাদিনে অন্তত 40 50বার তো হবেই ফোন করেছে সে… চিন্তা হলো খুব অন্য কারোর নাম্বারও নেই তার কাছে, কয়েক মাস আগে তার আগের ফোনটা চুরি গেছে কি করবে ভেবে পেলো না বাড়িতে যাবে?? কিন্তু এখন বছরের শেষ অনেক দায়িত্ব তার ওপর সে বারবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলো.. এই ভাবে কিছুদিন চললো, রোজ রাতে তার ফোনটা এক রহস্যময় ভাবে সাইলেন্ট 70টা মিস কল!!!!!! সব সময় তার মনে হতো কোনো এক অদৃশ্য ছায়া তাকে ঘিরে রেখেছে আষ্টেপৃষ্ঠে! সে আর থাকতে পারেনা প্রতিদিন এই এক জিনিস কি হচ্ছে তার সাথে এটা??? অফিসের কজে ভুল করে ফেলছে বস এর সাথে রোজ ঝামেলা লাগছে তার… সে মনে মনে ঠিক করে আর না এবার ফিরতেই হবে তাকে রোজ তার বাবা মা ফোন কেন ধরেনা তা জানতেই হবে তাকে…ছুটি নেয় সে….
তার বাড়ি কলকাতা শহর থেকে অনেকটা দূরে..”কাশীহারা” বর্ধমান জেলার একটা ছোট্ট নির্ভেজাল গ্রাম..গ্রাম্য পরিবেশ থেকে উঠে আসা পরিতোষের শহরের সাথে মানাতে একটু অসুবিধা হয়েছিল শুরুতে, কিন্তু আজ সে নিজেকে সাজিয়ে নিয়েছে শহরের ধাঁচে..আজ প্রায় 10বছর পরে গ্রামে পা দিলো সে, এ কয়েক বছরে অনেক পরিবর্তন হয়েছে গ্রাম টার সেই কাঁচা রাস্তা মাটির বাড়ি আর নেই..তবে বাড়ির পাশে বুড়ো শিব তলাটা একই আছে সেখানকার মানুষ নদী পুকুর গাছপালা সব একই আছে..
হঠাৎ সে খেয়াল করলো গ্রামের সবাই তার দিকে কৌতূহলী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে..হয়তো এ কয়েক বছরে তার অনেক পরিবর্তন হয়েছে বলে, শহরের ছাপ লেগেছে তার গায়ে…সে এসব এর তোয়াক্কা না করে এগিয়ে চলল বাড়ির দিকে..
সময় তখন 5টা, নভেম্বর মাস একটু তাড়াতাড়িই সন্ধ্যে হয়ে যায় এখন..মূল ফটকদ্বার থেকে তার বাড়ীটা একটু ভেতরে পুরোনো আমলের দু’মহলা জমিদার বাড়ী আজ দেখাশোনার অভাবে বাড়ীটির একটা দিক ভেঙে পড়েছে.. এতো বছর পরে বাড়ীতে ফিরে আনন্দের পাশাপাশি এক গা ছমছমানি ভাব হচ্ছে তার… চারিদিকটা অন্ধকার, আলোর রেখাটুকুও কোথাও দেখা যাচ্ছে না… এদিকে তার ফোনের চার্জটাও আজ গেছে… হাতড়াতে হাতড়াতে বাড়ির ভেতরে ঠুকলো সে.. কিছুক্ষণ মা বাবা কে ডেকেও সারা পেলো না সে..উপায় না পেয়ে অন্ধকারে ওপরে যাবার সিঁড়ি খুজলো এতো বছর এখানে থেকেছে সে তাই খুব একটা অসুবিধা হলো না তার খুঁজে নিতে..আস্তে আস্তে সে উপরে উঠলো..সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠেই একটা গাড়িবারান্দা আর তার বাঁ হাতে 4টে ঘর.. সে মাকে আবার ডাকলো এবারেও কোনো উত্তর নেই..চারিদিকে কিরকম গা ছমছমানি ভাব হালকা ঠাণ্ডা হাওয়া বয়ে আসছে উত্তর দিক টা দিয়ে.. পিছনের একটা ঘরে আলো জ্বলে উঠলো হঠাৎ করে ভয়ে তার হাত থেকে ব্যাগটা পরে গেলো..সে আস্তে আস্তে সেই ঘরের দিকে এগিয়ে গেলো… দরজা বন্ধ, হালকা ঠেলা দিতেই দরজাটা খুলে গেলো সশব্দে.. একটা তীব্র ঝাঁঝালো গন্ধে তার নাকটা ঝাঁঝিয়ে উঠলো.. অনেকটা কোনো জন্তু মরে পচলে যে গন্ধটা হয় ঠিক সেই রকম… এরপর তার আর কিছু মনে নেই পরের দিন সকালে যখন তার জ্ঞান ফেরে তখন সে এক চায়ের দোকানের বাইরে…স্থানীয় কিছু লোকের কাছে খবর পায় তার মা মারা যাবার পর তার বাবা আত্মহত্যা করে..কিছুদিন পর তারা গন্ধ পেয়ে সেই ঘরের ভেতর থেকে তার বাবার মৃতদেহ উদ্ধার করে…তার সাথে নাকি গ্রামের লোকেরা যোগাযোগ করার অনেক চেষ্টা করেছিল কিন্তু করতে পারেনি তাই তারাই তার বাবার শেষ কাজটা সম্পন্ন করেছিল…কষ্টে দুঃখে ভেঙে পড়ে সে..নিজেকে ক্ষমা করতে পারেনা পরিতোষ… একরাশ কষ্ট নিয়ে ফিরে আসে কলকাতায়.. বাড়ি ফিরে ব্যাগ খুলতেই সে ব্যাগের ভেতরে তার বাবা মা এর একটা ছবি আর একটি চিঠি দেখতে পায় সে… চিঠি টা খুলে সে দেখে……
“স্নেহের বাবু,
আজ তোমার মা আমাকে একা করে দিয়ে পরলোকে চলে গেলো.. এই এতো বড়ো বাড়িতে আমার একা থাকতে কষ্ট হচ্ছে.. এর মধ্যে তোমার সাথে অনেক বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছি… তোমার নতুন বাসার ঠিকানা তুমি আমাদের দাওনি তাই হয়তো আমার মৃত্যুর পর তুমি এই চিঠি পাবে… ভালো থেকো সুখী হও
ইতি,
তোমার বাবা….”

এখন পরিতোষ এক মেন্টাল হসপিটালে… খুব সম্ভবত তার অফিসের কলিগরা ই তাকে সেখানে পাঠায়………

অনুশ্রী কর